আগামী সপ্তাহে শুরু হচ্ছে যেসব ছাত্র ছা’ত্রীদের শিক্ষা কার্যক্রম

করো’নার সংক্রমণের শুরু থেকেই সংসদ টিভিতে ‘আমা’র ঘরে আমা’র ক্লাস’ শিরোনামে মাধ্যমিকের শিক্ষার্থীদের ক্লাস সম্প্রচার করা হচ্ছে।

সকাল ১০টা ৪০ মিনিট থেকে দুপুর ২টা ৪৫ মিনিট পর্যন্ত সংসদ টিভিতে ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির ক্লাস প্রচার করা হচ্ছে। ঈদুল আজহা উপলক্ষে আগামী ৮ আগস্ট পর্যন্ত সংসার টিভিতে মাধ্যমিকের ক্লাস বন্ধ থাকবে।

আগামী ৯ আগস্ট থেকে পুনরায় সংসদ টিভিতে ক্লাস প্রচার করা হবে।মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে এসব তথ্য জানিয়ে বি’জ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে।

গত ২৯ মা’র্চ থেকে সংসদ টিভিতে ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের ক্লাস সম্প্রচার করা হযচ্ছে। ৩০ জুলাই পর্যন্ত ক্লাস চলেছে। ৩১ জুলাই থেকে ৮ আগস্ট পর্যন্ত মাধ্যমিকের ক্লাস সংসদ টিভিতে প্রচার হবে না।

এর মধ্যে ২ থেকে ৬ আগস্ট পর্যন্ত ঈদের ছুটি। ৩১ জুলাই, ১ আগস্ট এবং ৭ ও ৮ আগস্ট শুক্র-শনিবার হওয়ায় নির্ধারিত সূচি অনুসারে ক্লাস হবে না।

জানা গেছে, সেপ্টেম্বরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার প্রস্তুতি হিসেবে সিলেবাস সংক্ষিপ্ত করার কাজ শুরু করা হয়েছে। শিক্ষার্থীর বয়স ও শ্রেণি অনুযায়ী জ্ঞান অর্জনের বিষয় সামনে রেখে সিলেবাস সংশোধন করা হবে বলে জানা গেছে।

আগামী নভেম্বরে পিইসি-ইবতেদায়ি এবং জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা আয়োজন হওয়ার কথা থাকলেও এসব পরীক্ষা পিছিয়ে নিয়ে ডিসেম্বরে আয়োজন করা হতে পারে। করো’নাভাই’রাসের সংক্রমণ ও মৃ’ত্যু অব্যাহত থাকায় শিগগিরই খুলছে না শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো। করো’না পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক না হলে সেপ্টেম্বরে খুলতে না পারলে শিক্ষাবর্ষ দুই মাস বাড়ানোর বিকল্প চিন্তাও আছে জানা গেছে।

দেশে এখন প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা তিন কোটি ১০ লাখের বেশি। এর মধ্যে মাধ্যমিক পর্যায়ের (ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণী) শিক্ষার্থীর সংখ্যা দেড় কোটি আর বাকি এক কোটি ৬০ লাখের বেশি শিক্ষার্থী রয়েছে প্রাথমিক ও প্রাক প্রাথমিক পর্যায়ে। এই বিশালসংখ্যক শিক্ষার্থীর জীবনে যাতে কোনো প্রকার বিরতি চলে না আসে; সে লক্ষ্যেই বছরান্তে বার্ষিক পরীক্ষা নেওয়ার চিন্তা করা হচ্ছে। একইসঙ্গে করো’নাকালে স্কুলপর্যায় থেকে কোনো শিক্ষার্থী যাতে ঝরে না পড়ে সেই জন্যও বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) পরীক্ষা বন্ধের কোনো সিদ্ধান্ত আমাদের নেই। এই পরীক্ষা আরও যুগোপযোগী করার জন্য প্রাথমিক শিক্ষা বোর্ড গঠনের কাজ চলছে। যদি সেপ্টেম্বরে স্কুল খোলে, তাহলে আমাদের এক ধরনের প্রস্তুতি রয়েছে। আর এই সময়ে স্কুল খোলা সম্ভব না হলে ভিন্ন পরিকল্পনা নেওয়া হবে। এজন্য সংশোধিত সিলেবাস তৈরি করা হচ্ছে। পরবর্তী ক্লাসের জন্য গুরুত্বপূর্ণ পাঠ চিন্তা করে সংক্ষিপ্ত সিলেবাস তৈরি করা হচ্ছে।’

ই’রাব সভাপতি মু’সতাক আহম’দের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক নিজামুল হক। স্বাগত বক্তব্য দেন ই’রাবের জ্যেষ্ঠ সদস্য সাব্বির নেওয়াজ। সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন- প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব মো. আকরাম-আল-হোসেন, সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা রাশেদা কে. চৌধুরী এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. ফসিউল্লাহ।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*