যেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বাদ পড়লো নতুন এমপিওভুক্তির তালিকা থেকে

কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এপিওভুক্তির তালিকা থেকে মাদ্রাসা ও কারিগরি স্তরের ৯৪টি প্রতিষ্ঠানকে বাতিল করা হয়েছে। অন্যদিকে মাধ্যমিক থেকে কলেজ পর্যন্ত বাতিল হয়েছে ১৭টি প্রতিষ্ঠান। যোগ্যতা অর্জন না হলেও এসব প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্তির তালিকায় যু’ক্ত করা হয়

 

পরে যাচাই-বাছাই শেষে এমপিওভুক্তি নীতিমালা ২০১৮ অনুযায়ী কাম্য যোগ্যতা পূরণ না হওয়ায় তালিকা থেকে এসব প্রতিষ্ঠানকে বাতিল করা হয় বলে জানা গেছে।

সূত্র জানায়, নতুন করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করতে তালিকা প্রকাশ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। তালিকাভুক্ত একাধিক প্রতিষ্ঠানের যোগ্যতা নিয়ে বির্তক উঠলে তা যাচাই-বাছাই করতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগে আলাদা দুটি কমিটি গঠন করা হয়। এ কমিটির সদস্যরা প্রায় ছয় মাস ধরে সেসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান যাচাই-বাছাই শেষ করেন।

বৃহস্পতিবার মাদ্রাসা ও কারিগরি বিভাগের ৭ স্তরের মোট ৯৮২টি প্রতিষ্ঠানকে চূড়ান্তভাবে তালিকা করে এসব প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষকদের কোড নম্বর দিয়ে বেতন-ভাতা প্রদানে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

এর আগে বুধবার মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের ১,৬৩৩টি প্রতিষ্ঠানকে চূড়ান্ত এমপিওভুক্ত করে তালিকা প্রকাশ করা হয়। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের গত বছরের (২০১৯) জুলাই থেকে নির্ধারিত বেতনভাতা পরিশোধ করতেও প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়।

দেখা গেছে, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগে সাতটি স্তরের মোট ৯৮২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে চূড়ান্তভাবে এমপিওভুক্তি আওতায় আনা হয়েছে। তবে গত ২৩ অক্টোবর এসব ক্যাটাগরিতে এমপিওভুক্তি ঘোষণা করা হয়েছিল এক হাজার ৭৬টি। এসব প্রতিষ্ঠান থেকে বাদ গেছে ৯৪টি প্রতিষ্ঠান।

এ ক্ষেত্রে মাদ্রাসা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে দাখিল স্তরে ৩৫৭টির মধ্যে চূড়ান্ত করা হয়েছে ৩২৪টি, আলিম স্তরে ১২৮টির মধ্যে ১১৯টি, ফাজিল স্তরে ৪২টির মধ্যে ৩৪টি, কামিল স্তরে ২৯টির মধ্যে ২২টি, কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কৃষি ৬২টির মধ্যে ৬০টি, ভোকেশনাল ১৭৫টির মধ্যে ১৬০টি এবং এইচএসসি (বিএম) ২৮৩টির মধ্যে ২৬৩টি প্রতিষ্ঠান চূড়ান্ত এমপিওভুক্ত হয়েছে।

এদিকে বুধবার নিম্ন মাধ্যমিক থেকে ডিগ্রি পর্যন্ত পাঁচ ক্যাটাগরিতে বাদ পড়ে ১৭টি প্রতিষ্ঠান। এর মধ্যে নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় (ষষ্ঠ-অষ্টম) ৪৩৯টির মধ্যে চূড়ান্ত হয় ৪৩০টি। মাধ্যমিক বিদ্যালয় (ষষ্ঠ-দশম) ৯৯৪টির মধ্যে ৯৯১টি। উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় একাদশ থেকে দ্বাদশ ৬৮টির মধ্যে সবকটি, কলেজ একাদশ থেকে দ্বাদশ ৯৩টির মধ্যে বাদ গেছে একটি। ডিগ্রি কলেজ (১৩শ-১৫শ) ৫৬টির মধ্যে চূড়ান্ত হয়েছে ৫২টি।

বাদ পড়া প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে এমপিওভুক্তি প্রতিষ্ঠানের তালিকা যাচাই বাছাই কমিটির প্রধান শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অ’তিরিক্ত সচিব মোমিনুর রশিদ আমিন বলেন, এমপিওভুক্তির পর কিছু প্রতিষ্ঠানের বি’রুদ্ধে নানা অ’ভিযোগ আসে। কিছু প্রতিষ্ঠান ভুল তথ্য দিয়ে এমপিওভুক্ত হয়। নীতিমাল-২০১৮ অনুযায়ী যেসব প্রতিষ্ঠানের তথ্যে গরমিল ছিল, সেগুলো বাদ গেছে। এখনও যদি অ’ভিযোগ আসে যাচাই-বাছাই করা হবে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*