মে’য়ের জন্ম’দিনে পুরোনো স্মৃ’তিতে ফিরে গেলেন তাহসান-মিথিলা

শোবিজ অঙনের সবচেয়ে আ’লোচিত নাম রাফিয়াত রশিদ মিথিলা। বিশেষ করে গত কয়েক মাস। তাহসানের সাথে ঘর বাঁ’ধার পর দারুণ এক রসায়ন।

হুট করে সেই ঘর ভেঙে যাওয়া। নতুন করে মিথিলার স্বপ্ন সাজানো। এসব নিয়ে নিয়মিতই খবরের শিরোনাম হয়েছে।

বাংলাদেশের একজন জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী, গীতিকার, সুরকার, অ’ভিনেত্রী এবং মডেল মিথিলা। কর্মজীবন শুরু করেন একজন পেশাদার উন্নয়নকর্মী হিসাবে।

শিক্ষাজীবন শেষে তিনি ব্র্যাকে একজন গবেষক হিসাবে যোগদান করেন। এরপর তিনি আ’মেরিকায় গিয়ে মিনিয়াপোলিস পাবলিক স্কুল ডিসট্রিক্টে কাজ করেন।

এক বছর সেখানে থাকার পর তিনি বাংলাদেশে ফিরে এসে স্কলাস্টিকায় হাই স্কুলে কাজ শুরু করেন। তিনি নর্দান বিশ্ববিদ্যালয়ে লেকচারার হিসেবেও কর্ম’রত ছিলেন। অ’ভিনয়েও সমানভাবে কুড়িয়েছেন সুনাম।

২০০৬ সালের দিকে সঙ্গীতশিল্পী তাহসানের সঙ্গে বিয়ে হয় মিথিলার। বিয়ের পরে উভয়ে যৌথভাবে বের করেছেন একাধিক গানের এ্যালবাম। ২০১৩ সালে এই দম্পতির ঘর আলো করে আসে একমাত্র কন্যাসন্তান আই’রা।

কিন্তু হঠাৎ গণ্ডগোল। এক নিমেষের ঝড়ে সব স্বপ্ন ভেঙে ছারখার। ২০১৭ সালের জুলাইয়ে তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। পরে ২০১৯ সালের ৬ ডিসেম্বর ভা’রতের অন্যতম জনপ্রিয় চলচ্চিত্র নির্মাতা সৃজিত মুখার্জিকে বিয়ে করেন মিথিলা।

এ দিকে তাহসানও তার নিজের মতো করে সময় কা’টাচ্ছেন। নতুন করে ভাবছেন! এরিমাঝে অবশ্য তাহসানকে অনেকটাই ভুলে গেছেন মিথিলা। তাকে নিয়ে কোনো রকম মন্তব্যও করেন না তিনি।

তবে এর মাঝে আসল আই’রার জন্ম’দিন। বুধবার (২৯ এপ্রিল) রাত ১২টার পর পরই দুজনই আলাদাভাবে মে’য়ের জন্ম’দিন নিয়ে আবেগী বার্তা দিলেন। তাতে মনে হবে সব কিছু ভুলে আবারও এক হয়ে গেল এই জুটি।

তাহসান নিজের ইনস্টাগ্রামে ভিন্ন ভিন্ন ভিডিও দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ছোট্র আই’রাকে। আর মিথিলা পুরনো অ্যালবামগুলো ঘেঁটে সেখান থেকে বেছে বেছে কিছু ছবি দিয়ে জানিয়েছেন কতটা ভালোবাসেন একমাত্র মে’য়েকে। এই দিনটা এলেই তারা যেন পুরনো স্মৃ’তিতে ফিরে যান। এবারও তার ব্যতিক্রম হলো না।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*